আমি কেমন মানুষ, আমি কি রাজনীতি করি !!

বিবা নিউজ ডেস্ক বিবা নিউজ ডেস্ক

সারা বিশ্বের প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০১৯
শেয়ার করুনঃ

আমাকে অনেকেই প্রশ্ন করে কোন দল করি. আমার লেখা আর কথা বার্তার ঢং দেখে অনেকেই আমাকে বিএনপির লোক বলেই মনে করে . বিশেষ করে আমার চেনা জানা মানুষগুলো আমাকে বি-পজিটিভ হিসেবেই সরাসরি আখ্যায়িত করে .

কিন্তু বাস্তবতা হলো আমি ইহো জনমে কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্যপদ গ্রহণ করিনাই . অনেক ধরণের লোভনীয় পদের প্রস্তাবনাকে সানন্দে ফিরিয়ে দিয়েছি বহুবার, তবুও কোনো রাজনৈতিক দলের পদাসীন হইনি .

কারণ , আমি লেখালিখি করি ও একটি মহান নেশাকে লালন করি, সেটা হলো ” সাংবাদিকতা ” এই নেশা বা পেশাতে যেই-ই থাকুক, তার কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে সরাসরি পদাধিকার ভুক্ত সম্পৃক্ততা কোনো ভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় .

আমার দেশে কে মানলো না মানলো আমার দেখার বিষয় নয় , আমি এটাকে মনে প্রাণে বিশ্বাস করি .

ব্যক্তিগত ভাবে কাউকে পছন্দ করা এবং না করা সেটা ভিন্ন বিষয় হলেও , লেখালিখিতে সত্য কথা লিখতে কুন্ঠাবোধ একদমই করিনা .

অনেকেই প্রশ্ন করে বিদেশে বসে সমালোচনা করি কেন !!বিশেষ করে সরকার দলীয় বন্ধুরা এই বিশেষ প্রশ্নটি করে থাকে .

আমি অবাক হই তাদের প্রশ্নটা দেখে . তাদের প্রশ্নের অপর পিঠে এক ধরণের হুমকি প্রকাশ পায় .
মানে হলো, যদি দেশে থাকতে লিখতাম তাহলে আমাকে মেরে কেটে কুটে মামলা হামলায় পুরোপুরি সাইজ করে ফেলতে পারতো .

একটু জানিয়ে রাখি , ওরকম রাজনীতি স্কুল ও কলেজ লাইফেই পাড় করে এসেছি . লেখালিখির বয়স অনেক হয়েছে , স্কুল জীবন থেকেই লিখি .

আজ পর্যন্ত কেউ সামনে দাঁড়িয়ে কটু কথা বলার মতো সাহস পায়নি . কারণ , সেরকম ভাবেই নিজেকে লালন করে আসছি .

যাক তাদের উদ্দেশ্যে আরো কিছু দৃশ্যমান সত্য আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে চাই .

  • মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান দেশে ছিলেন না .
  • জাতীয় চার নেতাদের কেউ -ই দেশে ছিলেন না .
  • বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর বোন দীর্ঘজীবন বিদেশের মাটিতেই থেকেছেন .
  • প্রধানমন্ত্রী সাম্প্রতিক আপদকালীন সময়ে বহুবার বিদেশেই বেশিরভাগ সময় আশ্রয় নিয়েছিলেন .
  • প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র পুত্র বিদেশী পরিবার সহ সারাজীবন বিদেশের মাটিতেই ছিলেন এবং এখন পর্যন্ত আছেন . উপরন্তু প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন সহ আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো তিনি-ই দেন .
  • প্রধানমন্ত্রীর বোন শেখ রেহানা সারা জীবন বিদেশের মাটিতেই কাটিয়েছেন এবং কাটাচ্ছেন .
  • প্রধানমন্ত্রীর ভাগ্নি বিদেশী স্বামী সহ বিদেশী পরিবারেই আচ্ছাদিত হয়ে আছেন . তিনি নিজেকে বাঙালি বলেই মনে করেন না .
  • প্রধানমন্ত্রীর কন্যা পুতুল , তিনি এবং তার পরিবার বিদেশের মাটিতেই থাকেন এবং বিদেশের পরিচয়পত্র বহন করেন .
  • আমার জানা মতে প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের কেউ-ই দেশে থাকেন না এবং দেশের কারো সাথে পারিবারিক আত্মীয়তার সম্পর্ক খুবই নগন্য

আমি মোটেও বলছিনা এগুলো অন্যায় বা অনুচিত . আমি এই কারণেই উল্ল্যেখ করলাম কারণ , স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী যদি পুরো বিদেশী পারিবারিক আচ্ছাদনে দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে পারেন , আমি কেনো সামান্য মানুষ হয়ে কোনো কথা বলতে পারবোনা .

কানাডা আমার ২৬ তম দেশ .
আমি সাময়িক সময়ের জন্য এখানে আসলেও , নিজেকে প্রবাসী বলেই গর্ব বোধ করি ও সাচ্ছন্দ বোধ করি .

প্রবাসীদের টাকায় দেশ চলে, তাই যদি সত্যি হয়, তাহলে প্রবাসীরা কেনো রাজনৈতিক কোনো কর্মকান্ড এবং রাজনীতি নিয়ে কথা বার্তা বলতে পারবেনা ?

এমন নিকৃষ্ট চিন্তা ভাবনা থেকে বেরিয়ে আসা উচিত সবাইকে .

অবশেষে আরেকটা ধ্রুব সত্য বলতে চাই .

দেশের প্রধান ২ দলের প্রধানের পারিবারিক বিদেশী যোগসূত্র গবেষণাতে দেখা যায় , বিএনপি প্রধানের বিদেশী আত্মীয়তার সংযোগ একদম নেই বললেই চলে .

দেশের কোনো ক্রান্তি লগ্নে বিএনপি প্রধানের পরিবারের কেউ দেশ ছেড়ে যায়নি .

বিএনপি প্রধানের পরিবারের কারোই বিদেশে কোনো বাড়িঘর নেই .

এটাই ধ্রুব সত্য . এতে কারো গায়ে জ্বালা ধরলে কিছুই করার নেই . সত্যকে সহ্য করার মতো শক্তি যাদের নেই , তারা আর যাই হোক, ভালো মনের অধিকারী নন .

সাংবাদিক হিসেবে সত্য কথা লেখার চেষ্টা করি , এতে কারো গায়ে লাগলে আমার কিছুই করার নেই . সত্য বলি এবং সত্য লিখেই যাবো . সত্য বলা থেকে কখোনই পিছু হটবোনা , যত বাঁধাই আসুক .

সাইফুর সাগর
সাংবাদিক
কানাডা থেকে