সদরঘাট চসিক জেনারেল হাসপাতাল টিকা প্রত্যাশীদের ভীর, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউই।

প্রকাশিত: ৯:০৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০২১
শেয়ার করুনঃ

বন্দরনগরী সহ সারা দেশে করোনার সংক্রমণের মাত্রা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। বাড়ছে মৃত্যু,শংকর সৃষ্টি হচ্ছে চিকিৎসা ব্যবস্থায়,সরকারি কিংবা বেসরকারি কোন জায়গাতেই নেই ব্যাড। এ যেন চরম সংকটের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত।

সংক্রমনের মাত্রা কমিয়ে আনতে সরকার গণ টিকার উদ্যোগ গ্রহণ করে, তারই লক্ষ্য নিয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনায় দেশব্যাপী গ্রাম শহর এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে গণ টিকার ক্যাম্পেইন শুরু করেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন।

গণ টিকার কার্যক্রমের আজ দ্বিতীয় দিন,
সদরঘাট চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন জেনারেল হাসপাতালে টিকা প্রত্যাশীদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।বেলা বাড়ার সাথে সাথে কিছুটা বাড়তে থাকে ভোগান্তি।লাইনে দাঁড়ানো কাউকেই দেখা যায়নি স্বাস্থ্যবিধি মানতে এবং অনেকে স্বস্তি প্রকাশ করলেও অনিয়মের অভিযোগও কম নয়। টিকা প্রত্যাশীরা বলছেন আমরা সকাল সাতটা থেকে দাঁড়িয়ে থেকে এখনো পর্যন্ত থাকতে পারছি না কিন্তু ঘেঁটে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা বেশ কিছু লোকজনকে কোন এক অদৃশ্য কারণে আগে ঢুকিয়ে দিচ্ছে।

টিকা দেয়ার ব্যাপারে স্বজনপ্রীতি কিংবা অন্য পথ অবলম্বন করাসহ বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে কথা হয় টিকা দেওয়ার দায়িত্বরত টেকনিশিয়ান মোঃ সাইফুল ইসলাম এর সাথে। তিনি বলেন এগুলো যারা বলছেন তারা মিথ্যে বলছেন আমাদের এখানে চাকরিরত অনেকে স্টারদের স্ত্রী আছেন তাদেরকে বিশেষ অনুরোধে যারা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকেন তাদের থেকে জিজ্ঞেস করে সুযোগ দেয়া হয়েছে মাত্র।

লাইনে দাঁড়ানো বিভিন্ন ব্যক্তির অভিযোগ,গেটে দায়িত্বরত প্রশাসনের দায়িত্বে যারা আছেন তারা ঠিকমতো তাদের দায়িত্ব পালন করছেন না, এ বিষয়ে জানতে চাইলে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসার মোঃ ইউসুফ চট্রলা টিভিকে জানান সকাল থেকে অনবরত আমরা আমাদের দায়িত্বটা পালন করে যাচ্ছি এতগুলো মানুষ কন্ট্রোল করার জন্য সম্ভব হচ্ছে না তারপরও আমরা আমাদের মতো সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তারপরও যদি কেউ অভিযোগ করে থাকে সেটা তিনি মিথ্যে বলেছেন আমাদের পক্ষ থেকে এ ধরনের কোনো কিছুর কিংবা দায়িত্ব অবহেলার হয়নি।

জীবন বাঁচাতে যেমন টিকার প্রয়োজন,তেমনি সংক্রমণ ঠেকাতে স্বাস্থ্যবিধিও সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। আসুন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, সরকার ঘোষিত গণ টিকায় অংশ গ্রহণ করি।

রিপোর্ট হুমায়ুন কবীর হীরু