ধর্ষণ ঠেকাতে নাইজেরিয়ায় জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্ত

Nayem Nayem

Rahman

প্রকাশিত: ১২:২২ অপরাহ্ণ, জুন ১৩, ২০২০
শেয়ার করুনঃ

আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় নারী ও শিশুরা ভয়াবহ যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। ধর্ষণসহ এসব অপরাধ ঠেকাতে জরুরি অবস্থা আরেপের মতো সিদ্ধান্তে সম্মত হয়েছেন দেশটির ৩৬টি রাজ্যের গভর্নররা। এই উদ্যোগের অংশ হিসাবে তারা শক্তিশালী কেন্দ্রীয় আইন প্রবর্তনেরও দাবি করেছেন।

২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে দেশের যৌন অপরাধীদের জন্য রেজিস্টার প্রণয়ন করেছিল নাইজেরিয়া সরকার। তবে যৌন সহিংসতা ও ধর্ষণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকার এখন জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানা গেছে।

ধারণা করা হচ্ছে, করোনাভাইরাস ঠেকাতে দেশজুড়ে যে লকডাউন জারি রয়েছে তার কারণেই দেশটিতে যৌন নির্যাতনের অপরাধ বেড়ে গেছে।

শুক্রবার প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদু বুহারি লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতার বিরুদ্ধে তার সরকারের দেয়া প্রতিশ্রুতি পুনরাবৃত্তি করেছেন। তিনি দেশের নাগরিকদের আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, পুলিশ সাম্প্রতিক সংগঠিত এসব যৌন অপরাধের বিচার নিশ্চিত করতে কাজ করছে।

গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে শুক্রবার টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে বুহরি বলেন, ‘আমি সাম্প্রতিক নারী নির্যাতন, বিশেষ করে খুব অল্প বয়সী মেয়েদের ধর্ষণের ঘটনায় বিচলিত। এই জঘন্য অপরাধের অপরাধীদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনার লক্ষ্যে পুলিশ এই মামলাগুলো নিয়ে কাজ করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি নারীদের আশ্বস্ত করে বলছি, আইনের যথাযথ প্রয়োগ এবং সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে আমাদের প্রশাসন জেন্ডার-ভিত্তিক সহিংসতার বিরুদ্ধে লড়াই করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞবদ্ধ।’

২০১৪ সালে করা ইউনিসেফের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, নাইজেরিয়ায় ১৮ বছর হওয়ার আগেই ২৫ শতাংশের বেশি নারী ধর্ষণের মতো যৌন অপরাধের শিকার হয়ে থাকে। ছেলেদের বেলায় এই সংখ্যা ১০ শতাংশ।

সূত্র: সিএনএন